নীলফামারীতে বিয়ের প্রলোভনে কিশোরীর সাথে শারিরিক সম্পর্কে ধর্ষিতা কিশোরী ২৯ সপ্তাহের অন্তঃসত্তা।

0
10

নীলফামারী প্রতিনিধিঃ প্রকাশঃ ১৯/০৯/২০২০ খ্রিঃ, সময়ঃ দুপুরঃ ০৩.৩১ মিনিট।

গত ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ খ্রিস্টাব্দ মোছাঃ ফাহিমা(ছদ্মনাম) থানায় হাজির হয়ে জানায় তাহার নাবালিকা কন্যা মোছাঃ জেবিন(১৩)(ছদ্মনাম) ৬ষ্ট শ্রেণীতে লেখাপাড়া করে।

ঘটনার বিবরণে জানা যায় যে, মোছাঃ জেবিন(১৩)(ছদ্মনাম) যাতায়াতের সময় মোঃ লালন নামে এক বখাটের নজরে পরে, বিভিন্ন সময় লালন মেয়েটিকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। এক পর্যায়ে বিয়ের প্রস্তাব দিলে মেয়েটি তার পরিবারের সাথে কথা বলার জন্য বলে। এতে লালন তাকে আশ্বস্থ করে যে সে খুব শিঘ্রই তার পরিবারকে ব্যপারটা জানাবে এবং আলোচনা করার জন্য লোক পাঠাবে। এভাবে প্রতিদিন প্রেম ও বিয়ের প্রস্তাবে একসময় মেয়েটি ছেলেটির প্রেমে পরে যায়। সে মেয়েটিকে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন জায়গায় বেড়াতে নিয়ে যায়, এ বং বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে একাধিকবার শারিরিক সম্পর্ক গড়ে তোলে। মেয়েটি বর্তমানে ২৯ সম্পাহের অন্তঃসত্তা।
ধর্ষিত মেয়ের পিতার করা অভিযোগের ভিত্তিতে নীলফামারী সদর থানায় মামলা রুজু করা হয়। যাহার নং-২৭, তারিখ-১৭/০৯/২০২০ খ্রিঃ, ধারা- নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ (সংশোধনী/০৩) এর ৯(১) তৎসহ ৫০৬(২) রুজু করা হয়।

মামলা রুজু পুর্বক আইনের সহিত সংঘাতে জড়িত শিশু লালকে গ্রেফতার ও জিজ্ঞাসাবাদে সে ধর্ষনের বিষয়টি স্বীকার করে। ভিকটিমের মেডিকেল পরীক্ষা এবং নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ২২ ধারা মোতাবেক বিজ্ঞ আদালতে জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়েছে।
আইনের সহিত সংঘাতে জড়িত শিশু লালন ঘটনা সংক্রান্তে বিজ্ঞ আদালতে ফৌজদারী কার্যবিধী ১৬৪ ধারা মোতাবেক স্বেচ্ছায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেছে।

Leave a Reply