রাজশাহীর বাগমারার গোয়ালকান্দী উপ-স্বাস্থ্য ও কল্যাণ কেন্দ্রে নানা অনিয়োমের অভিযোগ।

0
6

মোঃ শাহাদাত হোসেন, বাগমারা প্রতিনিধি:-

রাজশাহী বাগমারা উপজেলার গোয়ালকান্দী স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দে চিকিৎসা নিতে আসা বেশ কয়েকটি রোগী কেন্দ্র চিকিৎসাসেবা না পেয়ে ফেরত চলে যাওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

কেন্দ্র সকাল ১০-০০ টার সময় খোলার কথা থাকলে তা খোলা হয় ১০-৩০/১১-০০ আবার বন্ধ করে দেয় ১২ টার সময়। এমনকি ঔষুধ নেওয়ার জন্য দীর্ঘ সময় লাইনে দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। সাস্থ কেন্দের মুল দরজা বন্ধ করে রেখে বাহিরের একটি জানালা দিয়ে ছিটিয়ে ঔষুধ দেয়। কেন্দ্রর ডাঃ মোছাঃ এলিনা পারভিন করনা ভাইরাস সংক্রমণ হওয়ার সময় থেকে আর কেন্দ্র আসেনা তার পরিবর্তে তার স্বামী ডাঃ রেজাউল করিম সপ্তাহে ১দিন রবিবার কেন্দ্র আসেন।

এমনকি সব রোগের ওষুধ হিসেবে প্যারাসিটামল ও হিস্টাসিন দেওয়ার অভিযোগও করেন ভুক্তভোগীরা।
চিকিৎসা নিতে আসা আলামিন হোসেন, বলেন আমি গত ২দিন ধরে গলা ব্যতায় ভুগছিলাম আমি তাদের থেকে ঔসুধ চাইলে তারা শুধু প্যরাসিটামল দিয়ে বলে আর কোন ঔষুধ নাই । এছাড়াও হাসপাতালের সকল রোগের চিকিৎসা হচ্ছে প্যারাসিটামল ও হিস্টাসিন দিয়ে।
আরেক সেবাপ্রার্থী গুলনাহার অভিযোগ করে বলেন, আমিসহ আরো কয়েকজন বিভিন্ন রোগের চিকিৎসা নিতে এসেছিলাম কিন্তু আমাদের সবাইকে দেওয়া হয়েছে প্যারাসিটামল ও হিস্টাসিন

ভুক্তভোগীরা বলেন, হাসপাতাল যদি এইভাবে চলে তাহলে আমরা গরীব অসহায়রা কোথায় গিয়ে চিকিৎসা নিব?
সচেতন মহলের লোকজন জানান, গোয়ালকান্দী স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যান কেন্দ্র সেবার মান আগে অনেক ভাল ছিল, কিন্তু গত এক বছরেই ভেঙে গেছে স্বাস্থ্য কেন্দ্র চিকিৎসা সেবার মান। তারা আরো বলেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী স্বাস্থ্যখাতকে উন্নত করার লক্ষ্যে এগিয়ে যাচ্ছে কিন্তু কিছু অসাধু অর্থলোভী ব্যক্তিদের জন্য অনেকটাই পিছনে পড়ে যেতে হচ্ছে তাকে।

এছাড়াও এই হাসপাতালে জেনারেটর খরচ বাবদ এক বছরে এক লক্ষ টাকা বিল দেখানো হয়েছে কিন্তু গত এক বছরে দিনো চালু হয়নি হাসপাতালে দুইটি জেনেরেটর এছাড়াও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্রধান কর্মকর্তা ডক্টর আসাদুজ্জামান এর সরকারি গাড়িতে করে। দামি দামি ঔষধ পাচারের অভিযোগ পাওয়া যায়।

Leave a Reply