দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর নাটোর-বগুড়া মহাসড়ক চার লেনে উন্নীত হচ্ছে

0
9

দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর নাটোর-বগুড়া মহাসড়ক চার লেনে উন্নীত হচ্ছে

পিন্টু স্যার,নাটোর প্রতিনিধি:-

আগামী অর্থবছরে এ কাজটি সম্পন্ন করা হবে। তবে এই সড়কটি ছয় লেনে রূপান্তর করার প্রক্রিয়া চলছে বলেও জানিয়েছেন সড়ক ও জনপথ বিভাগ। এই সড়কটির কাজ শেষ হলে এলাকাবাসীর স্বপ্নের বাস্তবায়ন হবে।

স্থানীয়দের অভিযোগ, প্রায় ৫০ বছর আগে চালু হওয়া নাটোর-বগুড়া মহাসড়ক দিয়ে রাজশাহী, রংপুর ও খুলনা বিভাগের সব রকম যানবাহন চলাচল করে।

এই সড়কে এত গাড়ির চাপের কারণে মাত্র ১০ মিনিটের যানজট সৃষ্টি হলে হাজারো গাড়ি ও মানুষের দুর্ভোগ সৃষ্টি হয়।

অথচ যে সংখ্যক যানবাহন এই সড়ক দিয়ে যাতায়াত করে, সে অনুযায়ী সড়কটি যথেষ্ট চওড়া নয়। এজন্য প্রায় প্রতিনিয়ত এই সড়কে দুর্ঘটনাও ঘটে থাকে। প্রতিবছর অসংখ্য প্রাণহানি ঘটে।

এজন্য যানবাহন মালিক, জনপ্রতিনিধি ও সাধারণ মানুষসহ সংশ্লিষ্ট সবাই সড়কটি সংস্কারসহ প্রশস্তকরণের দাবি জানিয়ে আসছিলেন।

তবে ভোটের আগে রাজনৈতিক নেতারা শুধু আশ্বাসই দিয়েছেন। কিন্তু কোনো কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি।

এবার কাজ শুরু হওয়ায় তারা খুব খুশি এবং আশাবাদী। এ নিয়ে নানাভাবে আশার কথা ব্যক্ত করেছেন তারা। একই সঙ্গে কর্তৃপক্ষের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন।

স্থানীয় শস্য ব্যবসায়ী মো. হাবিবুর রহমান জানান, বিভিন্ন এলাকা থেকে শস্য কিনে ট্রাকে করে গন্তব্যস্থলে পৌঁছাতে হয়। কিন্তু দিনের বেলায় এই মহাসড়ক দিয়ে মালবাহী এবং ভারী যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকে।

তাই তাদের মালামাল যথাস্থানে পৌঁছাতে দেরি হয়। এতে ব্যবসায়িকভাবে তারা ক্ষতিগ্রস্ত হন।

কাজেই এই সড়কটি প্রশস্তকরণ করা হলে তাদের মালবাহী যানবাহন চলাচলে আর বাধা থাকবে না। খুব সহজেই এবং যথাসময়ে তাদের মালামাল গন্তব্যস্থলে পৌঁছানো সম্ভব হবে।

স্থানীয় অটোরিকশা চালক মো. ইদ্রিস আলী, আবেদ আলী, আক্কাস আলীসহ আরো অনেকে জানান, যাত্রীসহ নাটোর শহর থেকে দিঘাপতিয়া যেতে খুব ঝুঁকি নিয়ে অটোরিকশা চালাতে হয়।

এই মহাসড়কে যানবাহন বেশি এবং দ্রুত চলাচলের কারণে মাঝেমধ্যে দুর্ঘটনার শিকার হতে হয়। সড়কটি চার লেনে রূপান্তরিত হলে তাদের সেই সমস্যা আর থাকবে না।

Leave a Reply