পাবনা জেলায় সবজির বাজার ঊর্ধ্বগতি।

পাবনা জেলায় সবজির বাজার ঊর্ধ্বগতি।

মোঃ রেজাউল করিম বাবু, পাবনা জেলা প্রতিনিধিঃ-

পাবনা জেলার বিভিন্ন উপজেলা ও বিভিন্ন এলাকায় কাঁচাবাজার গুলোতে লাগামহীন ভাবে বেড়েছে কাঁচা মরিচসহ বিভিন্ন প্রকারের সবজির দাম।

সবজির বাজারের এই ঊর্দ্ধগতিতে নাভিশ্বাস উঠেছে সাধারণ ক্রেতাদের মাঝে। তবে সবজি বিক্রেতারা বলছেন অতিবর্ষণ ও বন্যার পানি ৫ম বারের মত বৃদ্ধি পাওয়ায় সবজির অনেক জমিতে পানি উঠে সবজির ক্ষেত নষ্ট হয়ে যাওয়ার ফলে সব প্রকার সবজির দাম এখন চড়া।

বেশকিছু ব্যবসায়ী অভিযোগ করেন কৃষকের উৎপাদিত সবজি একাধিক হাত বদল হয়ে ক্রেতার নিকট আসে ফলে সবজির বাজারে বেশী দাম গুণতে হচ্ছে ক্রেতাদের।

জানা গেছে, অতিবৃষ্টি ও বন্যার পানি উত্তরাঞ্চল সহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃদ্ধির কারণে কৃষকের সবজির ক্ষেতে পানি জমে অধিকাংশ সবজি নষ্ট হয়ে গেছে ফলে এসব অঞ্চলের যে সকল সবজিগুলো বাজারে আসত সেগুলো আর বাজারে আসছে না। তাই সবজির বাজার বেশী ও ঊর্দ্ধগতি এমনটি মনে করছেন বিভিন্ন বাজারের একাধিক সবজি বিক্রেতা।

আজ সোমবার(১২ অক্টোবর) সরেজমিন বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে কাঁচা মরিচ ও সবজির বেশ আমদানি ছিল কিন্তু দামও ছিল বেশ চড়া। প্রতি কেজি করলা বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকা, কাঁচা মরিচ ১৮০-২০০ টাকা, আলু ৪৫-৫০ টাকা, ঢেড়শ ৬০ টাকা, পটল ৬০ টাকা, ফুলকপি ৬০ টাকা, মুলা ৬০ টাকা, পেঁপে ৩০ টাকা, শশা ৬০ টাকা কেজি বিক্রি হতে দেখা গেছে।

কিছু ব্যবসায়ী জানান, বেশী দামে কিনে খুচরা বাজারে ক্রেতাদের নিকট তাদের বেশী দামে বেচতে হচ্ছে।

এবিষয়ে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর খামারবাড়ি পাবনা এর উপ-পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) মোঃ শামসুল আলম মুঠোফোনে জানান, অতিবৃষ্টি ও বন্যার পানির কারণে এলাকার অনেক কৃষকের সবজির জমি নষ্ট হয়েছে। তবে অল্পদিনের মধ্যেই আবারও সবজির বাজার স্বাভাবিক অবস্থায় আসবে বলে মনে করেন এই কর্মকর্তা।

Author: Md Arafat Hossain

Md Arafat Hossain is a publisher team chip and floating correspondent of D.A.B. News - দৈনিক আমার বাংলা।

Leave a Reply