হঠাৎ উধাও শিঙাড়া…

জামাল মিয়া কিশোরগঞ্জের ভৈরব পৌর শহরের চন্ডিবের দক্ষিণপাড়ার একজন চা–দোকানি। টানা ৩০ বছর ধরে চায়ের সঙ্গে পুরি, শিঙাড়া ও পিঠা বিক্রি করে আসছেন তিনি। অন্য সবের চেয়ে তাঁর দোকানের শিঙাড়ার চাহিদা একটু বেশি। ফলে জামালের দোকানে সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত শিঙাড়া থাকেই। তবে জামাল এক সপ্তাহ ধরে শিঙাড়া বানাচ্ছেন না।
জানতে চাইলে জামাল মিয়া বলেন, ‘কেমনে বানামু? আলুর দাম ৫০ টেহার ওপর। শিঙাড়া বেছি তিন টেহা। একেকটা শিঙাড়ায় খরচ আছে পাঁচ টেহা। আবার তিন টেহারটা পাঁচ টেহা বেচলে খাইতে চায় না।’

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, শুধু জামাল মিয়াই নন, ভৈরবের বেশির ভাগ হোটেল ও চায়ের দোকান থেকে শিঙাড়া এখন প্রায় উধাও হয়ে গেছে। আলুর দাম বেড়ে যাওয়াই এর কারণ বলে বিক্রেতারা জানালেন।

Leave a Reply