চট্টগ্রামে চলছে মুজিববর্ষ উপলক্ষে ফুটবল টুর্নামেন্ট। কর্পোরেট লীগের আদলে করার ইচ্ছা দুই পরিচালকের।

মোঃ সিরাজুল মনির, ব্যুরো প্রধান, চট্টগ্রাম বিভাগ:-

মুজিব বর্ষ উপলক্ষে চট্টগ্রামে চলছে ফুটবল টুর্নামেন্ট। এবার ক্রিকেট টুর্নামেন্ট আয়োজন করতে চায় জেলা ক্রীড়া সংস্থা। কিন্তু এই ক্রিকেট টুর্নামেন্ট কোন ফরমেটে হবে তা নিয়ে চলছে আলোচনা। আর সে জন্য দেশের দুই সাবেক অধিনায়ক এবং বিসিবির দুই পরিচালক আকরাম খান এবং খালেদ মাহমুদ সুজনকে নিয়ে বসেছিল চট্টগ্রাম জেলা ক্রিকেট সংস্থা। আর সে সভায় বিসিবির দুই পরিচালক কর্পোরেট লিগের আদলে একটি টুর্নামেন্ট করার জন্য। যেহেতু ক্রিকেট টুর্নামেন্ট করতে গেলে খরচ বেশি পড়বে তাই জেলা ক্রীড়া সংস্থার পক্ষে এই টুর্নামেন্টের খরচ বহন করাটা কঠিন হয়ে পড়বে। তাই বিসিবির দুই পরিচালক পরামর্শ দিয়ে গেছেন যাতে কর্পোরেট হাউজ দিয়ে যাতে এই টুর্নামেন্ট করা হয়। ঢাকায় চলছে এখন তিন দলের ওয়ানডে সিরিজ। এরপর হবে পাঁচ দলের টি-টোয়েন্টি সিরিজ। আর সে সিরিজের পর অর্থাৎ ডিসেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে এই টুর্নামেন্ট করার পরামর্শ দেন বিসিবির দুই পরিচালক।
সিজেকেএস সম্মেলন কক্ষে সভায় জেলা ক্রীড়া সংস্থার এই সভায় আলোচনা হয় কিভাবে এবং কোন ফরমেটে এই টুর্নামেন্ট আয়োজন করা হবে। বিসিবির দুই পরিচালক পরামর্শ দেন যদি টুর্নামেন্ট করতে হয় তাহলে সব ক্রিকেটার এবং কোচিং স্টাফকে এক হোটেলে রাখতে হবে। সেক্ষত্রে ব্যয় যেটা হবে সেটা সিজেকেএস এর পক্ষে বহন করা হয়তো
সম্ভব হবেনা। পাঁচটি দল নিয়ে এই টুর্নামেন্ট করতে চায় সিজেকেএস। আর সে টুর্নামেন্টে চট্টগ্রামের ক্রিকেটাররা অংশ নিলেও কোটার ক্রিকেটার হিসেবে ঢাকার ক্রিকেটারদের খেলানোর চিন্তা রয়েছে জেলা ক্রীড়া সংস্থার। সে ক্ষেত্রে মধ্য ডিসেম্বরের আগে এই টুর্নামেন্ট করা সম্ভব হবেনা। কারণ তখন পর্যন্ত ঢাকায় পাঁচ দলের টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট চলবে। আর সে টুর্নামেন্টে ব্যস্ত থাকবে চট্টগ্রামের অনেক ক্রিকেটার।

একটি সাধারণ হিসেবে দেখানো হয়েছে একটি দলের পেছনে যদি ২০ লক্ষ টাকাও খরচ হয় তাহলে প্রায় এক কোটি টাকা খরচ হবে এই টুর্নামেন্টে। যা জেলা ক্রীড়া সংস্থার পক্ষে বহন করা সম্ভব নয়। তাই কর্পোরেট হাইজগুলোকে অন্তর্ভূক্ত করার পরামর্শ দিয়েছে বিসিবির দুই পরিচালক। তবে বিসিবি এই টুর্নামেন্টর জণ্য সিজেকেএসকে কোন আর্থিক সহযোগিতা করতে পারবেনা। তবে যদি অন্য লজিস্টিক সহযোগিতা লাগে তাহলে তা দেবে বিসিবি। তবে সব আয়োজন করতে হবে সিজেকেএসকে। সভায় বলা হয়েছে যদি কর্পোরেট হাউজ গুলোকে অন্তর্ভুক্ত করা যায় তাহলে টুর্নামেন্টটিও আকর্ষণীয় হবে। যেভাবে ঢাকায় পাঁচ দলের টুর্নামেন্ট করার চিন্তা করছে। যদিও বিসিবির যেহেতু আর্থিক কোন সমস্যা নেই সেহেতু বিসিবি সভাপতি এরই মধ্যে জানিয়ে দিয়েছেন যদি কোন কর্পোরেট হাউজ পাওয়া না যায় তাহলে বিসিবি নিজেদের অর্থ দিয়ে এই টুর্নামেন্ট করবে। কিন্তু জট্টগ্রাম জেলার পক্ষে সেটা হয়তো সম্ভব হবেনা। তাই কর্পোরেট হাউজগুলোকে এই টুর্নামেন্টে অন্তর্ভুক্ত করার চেষ্টা করাটা বেশি ভাল হবে বলে মনে করছে বিসিবির পরিচালকরা। আর এই টুর্নামেন্টে অংশ নিতে যেসব কর্পোরেট হাউজ ইচ্ছা পোষণ করবে তাদেরকে আগামী ২৫ অক্টোবরের মধ্যে চট্টগ্রাম জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক বরাবরে আবেদন করতে অনুরোধ জানানো হয়েছে।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (এল এ), চট্টগ্রাম, সিজেকেএস এর সহ-সভাপতি ও ক্রিকেট কমিটির চেয়ারম্যান মো. আবু হাসান সিদ্দিকের সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন সিজেকেএস সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দীন, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক ও ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটির চেয়ারম্যান আকরাম খান, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক ও ক্রিকেট ডেভলপমেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান খালেদ মাহমুদ সুজন, সিজেকেএস সহ-সভাপতি দিদারুল আলম চৌধুরী, ক্রিকেট কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান আলী আব্বাস, সিজেকেএস যুগ্ম সম্পাদক আমিনুল ইসলাম, মো. মশিউর রহমান চৌধুরী, কোষাধ্যক্ষ শাহাবুদ্দীন মো. জাহাঙ্গীর, সিজেকেএস নির্বাহী সদস্য ও ক্রিকেট সম্পাদক এ কে এম আবদুল হান্নান আকবর, সিজেকেএস নির্বাহী সদস্য আ ন ম ওয়াহিদ দুলাল, মো. শাহজাহান, হাসান মুরাদ বিপ্লব, মো. জমির উদ্দিন (বুলু), ক্রিকেট কমিটির যুগ্ম সম্পাদক শওকত হোসেন, সিজেকেএস কাউন্সিলর দিদারুল আলম, এনামুল হক প্রমূখ।

Leave a Reply