চুয়াডাঙ্গা সদর ফাঁড়ি পুলিশের মাদক বিরোধী অভিযানে ৩০ বোতল ফেন্সিডিল -সহ ১ মাদক কারবারি আটক

চুয়াডাঙ্গা সদর ফাঁড়ি পুলিশের মাদক বিরোধী অভিযানে ৩০ বোতল ফেন্সিডিল -সহ ১
মাদক কারবারি আটক

তুহিনুর রহমান সোহাগ
চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধিঃ-

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ উদ্যোগ দেশের যুব সমাজকে রক্ষা করতে মাদককে জিরো টলারেন্স ঘোষনা করেছেন। সেই উদ্যোগকে সাফল্য করতে ও সেই লক্ষে উদ্বুদ্ধ হয়ে মাদকের অবৈধ অনুপ্রবেশ ঠেকাতে, চুয়াডাঙ্গা জেলা সুযোগ্য পুলিশ সুপার জাহিদুল ইসলাম এর দিকনির্দেশনায়, চুয়াডাঙ্গা সদর ফাঁড়ি পুলিশের মাদক বিরোধী অভিযানে ৩০ বোতল ফেন্সিডিল – সহ এক মাদক কারবারিকে আটক করেছে পুলিশ। আটক’কৃত মাদক কারবারি হলেন – চুয়াডাঙ্গা সদর থানার অন্তভুক্ত পৌরসভাধীন সাতগাড়ি এলাকার হিজড়া পাড়া গ্রামের মৃত ফজলুর রহমানের ছেলে মমিনুল ইসলাম অরফে মমিন (৩২)।

থানা পুলিশ সুত্র জানা গেছে, চুয়াডাঙ্গা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা পুলিশ অফিসার ইনচার্জ ওসি আবু জিহাদ ফকরুল আলম খান এর নেতৃত্বে, বৃহস্পতিবার (১৫ অক্টোবর) বিকাল ৪ টার সময় গোপন সংবাদের ভিক্তিতে চুয়াডাঙ্গা সদর ফাঁড়ি ইনচার্জ এস আই রইছ উদ্দিন শরীফ সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে পৌরসভাধীন সাতগাড়ি এলাকায় মমিনুল ইসলাম মমিনের নিজ বসতবাড়িতে মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনা করে বিধিমোতাবেক বসত বাড়ি তল্লাশি করে তার জ্ঞানতঃ দখল ও নিয়ন্ত্রণ থেকে ভারতীয় নেশাজাতীয় মাদকদ্রব্য ৩০ বোতল ফেন্সিডিলসহ মাদক কারবারি মমিনুল ইসলাম মমিন’কে হাতেনাতে আটক করেন পুলিশ। এসময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেছে মমিনুল এর তিন সহপাঠী পালিয়ে যায়। আটককৃত আসামি মোঃ মমিনুল ইসলাম মমিনকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ করে তার প্রদত্ত তথ্য অনুযায়ী ঘটনায় জড়িত পৃষ্ঠপোষক ও মদদদাতাদের গ্রেপ্তার অভিযান শেষে টি এস আই রইচ উদ্দিন শরীফ এর লিখিত অভিযোগের প্রেক্ষিতে আটককৃত আসামি মোঃ মমিনুল ইসলাম মমিন সহ এজাহারনামীয় সর্ব মোট চারজন আসামির বিরুদ্ধে ২০১৮ সালের মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে নিয়মিত মামলা রুজু করা হয়।

এবিষয়ে চুয়াডাঙ্গা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি আবু জিহাদ ফকরুল আলম খান, দৈনিক জাগো দেশকে বলেন, আটককৃত মমিনুল ইসলম অরফে (মমিন) একজন পেশাদার মাদক ব্যবসায়ী। সে তার অন্যান্য সহযোগিদের সহায়তায় সীমান্তবর্তী এলাকা হতে ফেন্সিডিল সংগ্রহ করে নিজ বসত বাড়ীতে দীর্ঘদিন ধরে বিক্রির করে আসেন বলে আমরা জানতে পারি। তারপর আমরা আমাদের সোর্স নিয়োগ করি মমিনুল রহমান মমিন এর পিছনে। আজ আমাদের সেই সোর্সের গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তাকে ফেন্সিডিলের চালানসহ আটক করতে সক্ষম হই। আরো বলেন আসামীর স্বীকারোক্তি ও তথ্য অনুযায়ী পৌরসভা এলাকার বেশকিছু হোয়াইট কলার মাদক ব্যবসায়ীর তথ্য পাওয়া গেছে।এ বিষয়ে চুয়াডাঙ্গা থানাসহ চুয়াডাঙ্গা জেলা পুলিশের বেশকিছু দায়িত্বশীল চৌকস টিম কাজ করছে। খুব শীঘ্রই তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে।

Author: Md Arafat Hossain

Md Arafat Hossain is a publisher team chip and floating correspondent of D.A.B. News - দৈনিক আমার বাংলা।

Leave a Reply