করোনায় আক্রান্ত হয়ে হোম আইসোলেশনে রয়েছেন নীলফামারী পুলিশ সুপার।

0
21

করোনায় আক্রান্ত হয়ে হোম আইসোলেশনে রয়েছেন নীলফামারী পুলিশ সুপার।

নীলফামারী প্রতিনিধিঃ
করোনায় আক্রান্ত হয়ে হোম আইসোলশনে রয়েছেন নীলফামারী পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোখলেছুর রহমান রহমান বিপিএম, পিপিএম। গত ২১/১০/২০২০, বুধবার রাতে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসে। সেই সাথে তিনিসহ নতুন করে আরো ৮ জন করোনা পজিটিভ হয়।
গতকাল বৃহস্পতিবার নীলফামারী পুলিশ সুপার তাহার করোনা আক্রান্ত হওয়ার বিষয়টি মুঠোফোন নিজেই সাংবাদিকদের নিশ্চিত করেন।
পুলিশ সুপারের কার্যালয় হতে জানা যায় এসপি মহোদয় বর্তমানে তার সরকারী বাসভবনে হোম আইসোলেশনে রয়েছেন। কোভিড-১৯ এর বৈশ্বিক মহামারীর সংকটকালীন সময়ের শুরু থেকেই তিনি গণসচেতনতার কাজ করছিলেন।
সূত্রমতে তিনি জেলার বিভিন্ন থানায় বিট পুলিশিং কার্যক্রম জোড়দার ও শারদীয় দূর্গাপূজা উপলক্ষে বিভিন্ন স্থান পরিদর্শন করেন। বিভিন্ন সময় পরিদর্শনে গিয়ে হঠাৎ করে অসুস্থ্যবোধ করতে থাকেন। গত বুধবার তিনি দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের পিসিআর ল্যাএব করোনার নমুনা দিলে ওই দিনই তার রিপোর্ট পজিটিভ আসে।
এদিকে আজ বৃহস্পতিবার নীলফামারী জেলা সিভিল সার্জন ডাঃ জাহাঙ্গীর করিব জানান নীলফামারী জেলায় পুলিশ সুপার সহ নতুন করেন ৮ জনের শরীরে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছেন। অন্যান্য আক্রান্তদের মধ্যে রয়েছে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের সিএইচসিপি মাহাবুল ইসলাম (৩২), পৌর শহরের শান্তিনগর এলাকার মিলন(৪৫), পূর্ব দুহুলী গ্রামের জগদিস চন্দ্র রায়(৪৫) ও জয়ন্ত মোহন (৬৫), জলঢাকা উপজেলার মাথাভাঙ্গা এলাকার সালমা আক্তার (২৯) এবং কিশোরীগঞ্জ উপজেলার ডাঙ্গাপাড়া এলাকার সোহেল রানা(৩২) ও সানজিদা খাতুন (৩০)।
জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের সূত্র মতে, এ নিয়ে জেলায় মোট করোনা আক্রান্ত সংখ্যা দাঁড়ালো এক হাজার ১৩৯ জনে। এরমধ্যে জেলা সদরে ৬০০জন, ডোমার উপজেলা-৯৪জন, ডিমলা উপজেলায় ১০০জন, জলঢাকা উপজেলায়-১৫৪জন, কিশোরীগঞ্জ উপজেলায় ৫৯জন ও সৈয়দপুর উপজেলায় ১৩২জন। এর মধ্যে সুস্থ হয়েছেন এক হাজার ৮৫জন ও মৃত্যু বরণ করেছে ২০ জন। করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণের মধ্যে জেলা সদরে ৭ জন, সৈয়দপুর উপজেলায় ৬ জন, জলঢাকা উপজেলায় ৫ জন, কিশোরীগঞ্জ উপজেলা ১জন ও ডোমার উপজেলায় ১জন।
নতুন করে করোনা আক্রান্তদের মধ্যে বর্তমানে সদর জেনারেল হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ২ জন ও বাকীরা নিজ নিজ বাড়িতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন

Leave a Reply