চট্টগ্রামে প্রতিনিয়ত বেড়ে চলেছে সবজির দাম।

0
39

চট্টগ্রামে প্রতিনিয়ত বেড়ে চলেছে সবজির দাম।

মোঃ সিরাজুল মনির চট্টগ্রাম।
চট্টগ্রামে ঊর্ধ্বমুখী সবজির বাজার। আবার দাম বেড়েছে সবজি ও মাছের। দীর্ঘদিনের অস্থিরতা কাটছে না সবজির বাজারে। এতে নাভিশ্বাস বেড়েছে ক্রেতাদের। শীত মৌসুমে সবজির দাম অন্যান্য সময়ের চেয়ে কম হয়। এরমধ্যে প্রকৃতিতে শীত অনুভূত হচ্ছে। বাজারেও শীতকালীন সবজিসহ বারোমাসি সবজির উপস্থিতি লক্ষ্যণীয়। কিন্তু সবজির যথেষ্ট উপস্থিতি থাকলেও দাম কমছে না বাজারে। গতকাল বাজারে ফের চড়া দামে বিক্রি হয় সব রকমের সবজি। প্রতি কেজি আলু বিক্রি হয় ৫০ টাকায়, ছোট দেশি আলু ৬০ টাকায়। গত সপ্তাহের চেয়ে আলুর দাম ফের বেড়েছে ১০-১৫ টাকা। ১৫০ টাকার কাঁচামরিচ দাম বেড়ে কাল বাজারে আবার বিক্রি হয়েছে ২শ’ টাকায়। টমেটো ৯০ থেকে থেকে দাম বেড়ে ১শ’-১২০ টাকায়, ধনেপাতা ১২০ থেকে বেড়ে ১৫০ টাকায় বিক্রি হয়।গত সপ্তাহ থেকে এ সপ্তাহে যেসব সবজির দাম কমেছে সেগুলো মধ্যে গাজর বিক্রি হচ্ছে ১শ’ টাকায়, শিম একশ’ থেকে ১১০ টাকায়, বেগুন ৬০ থেকে ৮০ টাকায়, পটল ৮০ টাকায়, বরবটি ৮০ থেকে ১শ’ টাকায়, তিতাকরলা ৮০ থেকে একশ টাকায়, পেঁপে ৩০-৩৫ টাকায়, লাউ ৪০ টাকায়, কচুরছড়া ৬০-৭০ টাকায়, ফুলকপি ১শ’ টাকায়, বাঁধাকপি ৮০ টাকায়, চিচিঙ্গা ৭০ টাকায়, ঝিঙ্গা ৯০ টাকায়, ঢেঁড়স ৮০ টাকায় ও শসা ৫০ টাকায় বিক্রি হয়। এছাড়া দাম প্রায় ২০ থেকে ৩০ টাকা বেড়ে পেঁয়াজ প্রতিকেজি বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৯০ টাকায়। মিশরের পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকায়, ভারতীয় পেঁয়াজ ৮০ ও দেশি পেঁয়াজ ৯০ টাকায়। রসুন ৮০ থেকে ৯০ টাকা ও আদা ১৫০ থেকে ১৮০ টাকায় বিক্রি হয়।

সমুদ্রে বেশ কিছু দিন ধরে মাছ ধরা বন্ধ থাকায় বাজারে মাছের দাম বেড়েছে। তবে বাজারে সামুদ্রিক ও চাষের সবরকম মাছের সরবরাহ রয়েছে। বাজারে এখনো দেখা মিলছে ইলিশ মাছেরও। ইলিশ হালি ৬শ’-৬৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আকার ভেদে ১ হাজার টাকায়ও বিক্রি হচ্ছে ইলিশ। রূপচাঁদা ৬শ’ টাকা, কোরাল মাছ সাড়ে ৫শ’ থেকে ৫৫০ টাকা, চৌক্কা ২৬০ টাকা, লইট্যা আকার ভেদে এক’শ থেকে ১২০ টাকায়, বাড়া ২৯০ থেকে ৩শ’ টাকায়, পাবদা ৫শ’, সামুদ্রিক চিংড়ি ৩ শ থেকে আকার ভেদে ৬শ’ টাকায়ও বিক্রি হচ্ছে। দেশিয় পুকুরে চিংড়ি সাড়ে ৪শ’ থেকে ৫শ’ টাকায়, পাঙ্গাস একশ’ থেকে ১২০ টাকায়, তেলাপিয়া একশ’ থেকে ১২০ টাকায়, রুই ১৮০ থেকে ২ শ’ টাকায়, কাতল ২৪০-২৫০ টাকায়, কই সাড়ে ৪শ’ টাকায় ও শিং ৫শ’, পোঁপা মাছ আড়াইশ টাকায় বিক্রি হয়।

অপরিবর্তিত রয়েছে ব্রয়লার মুরগি। প্রতি কেজি ব্রয়লার মুরগি ১২০ থেকে ১২৫ টাকা। লেয়ার মুরগি ২২০ টাকা ও সোনালি মুরগি ১৯০ থেকে ২শ’ টাকায় বিক্রি হয়। হাড় ছাড়া গরুর মাংস বিক্রি হচ্ছে সাড়ে ৬শ’ টাকায়, হাড়সহ সাড়ে ৫শ’ টাকায় ও খাসির মাংস ৮শ’ টাকায় বিক্রি হয়।

একটি বেসরকারী ব‍্যাংকের কর্মকর্তা আবদুল ওয়াজেদ বলেন মাসিক বেতনের একটা নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা বাজারের জন‍্য বরাদ্দ থাকে। গত তিন মাস আগে যখন লগডাউন ছিল তখন ও সবজির পেছনে এত টাকা খরচ হয়নি। করোনার সময় থেকে এখন সবজির দাম দিগুন বলেও তিনি আক্ষেপ করে বলেন কোন সবজি বাজারে কমতি নেই তারপর ও সংকট দেখিয়ে ব‍্যবসায়ীরা অতিরিক্ত মুনাফার আশায় সিন্ডিকেট করে সবকিছুর দাম বাড়তি নিচ্ছে।

Leave a Reply