” কোরবানির নিয়মকানুনে এসেছে কিছু পরিবর্তন”

0
5
" কোরবানির নিয়মকানুনে এসেছে কিছু পরিবর্তন"

কোরবানির ঈদের বাকি আর মাত্র একটি সপ্তাহ।এরইমধ্যে দেশের বিভিন্ন হাটে কোরবানির পশু তোলা শুরু হয়েছে। তবে এবারের কোরবানির ঈদের নতুন করে যুক্ত হয়েছে মহামারী করোনাভাইরাস।

এ কারণে মানুষের কোরবানির নিয়মিত আনুষ্ঠানিকতায় বড় ধরণের পরিবর্তন দেখা যাচ্ছে। তেমনি কোরবানির সার্বিক দিক ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে যারা আছেন, তাদের তদারকি ও নির্দেশনা প্রয়োগেও এসেছে বড় ধরণের পরিবর্তন।

ঢাকার বাসিন্দা আক্তার জাহান শিল্পী প্রতিবছর দুটি গরু কোরবানি দিয়ে থাকেন।

একটি ঢাকায়, তিনি যেখানে থাকেন। এবং আরেকটি তার গ্রামের বাড়িতে।

কিন্তু করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের কারণে এবার তিনি কয়েকজন প্রতিবেশীর সঙ্গে যৌথভাবে একটি পশু কোরবানি দেয়ার পরিকল্পনা করেছেন। গ্রামের বাড়িতে কোরবানি দেবেন না বলেই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

তিনি যে ভবনে থাকেন সেখানকার বাসিন্দারা প্রথমে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন কম্পাউন্ডের ভেতরে কোন কোরবানি হবে না।

পরে একসঙ্গে আলোচনার ভিত্তিতে এবারে সীমিত পরিসরে কোরবানির আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

মিসেস আক্তার বলেন, “আগে আমাদের ভবনে ৩০টা গরু কোরবানি হতো। এখন সেখানে ১২টা গরু কোরবানি হবে কিনা সন্দেহ। সেটাও সম্পন্ন হবে দুই দিনে। যেন মানুষের সমাগম কম হয়। ”

এবারের কোরবানির ঈদে পশুর হাটগুলোয় ভিড়ভাট্টা এড়াতে বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান অনলাইনে পশু কেনার বেচার ব্যাপারে প্রচারণা চালিয়ে আসছে।
যেখানে ক্রেতারা ঘরে বসেই পশুর ছবি ও ভিডিও দেখে গরু পছন্দ করতে পারবেন।

সিটি কর্পোরেশন এবং সারা দেশের জেলা উপজেলার স্থানীয় প্রশাসন জানিয়েছে যে এবারে তারা হাটের সংখ্যা আগের চাইতে কমিয়ে এনেছে।

এরমধ্যে কিছু হাটের একটি অংশ বরাদ্দ রাখা হয়েছে অনলাইন কেনাকাটার জন্য।

মানুষের ভিড় এড়াতে প্রতিটি হাট একমুখী করা হয়েছে, অর্থাৎ মানুষের প্রবেশ ও বের হওয়ার পথ আলাদা হবে।

সেই সঙ্গে স্বাস্থ্যবিধি নজরদারি করতে ভ্রাম্যমাণ আদালতের বাড়তি টিম এবং কেউ অসুস্থ হলে তাদের সেবায় আলাদা স্বাস্থ্যসেবা টিম প্রস্তুত রাখা হয়েছে বলে জানা গেছে।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের জন সংযোগ কর্মকর্তা আবু নাসের বলেন, “প্রতিটি হাটের প্রবেশ মুখে জীবাণুনাশক ছেটানোর ব্যবস্থা থাকবে। আগে যেখানে সবগুলো হাটে কয়েকটি ভ্রাম্যমাণ আদালত ছিল, এবারে প্রতিটি হাটে ভ্রাম্যমাণ আদালত স্ট্যান্ডবাই থাকবে। ইজারাদারদের কেউ স্বাস্থ্যবিধি লঙ্ঘন করলে তাদের ইজারা সাথে সাথে বাতিল করার নির্দেশ রয়েছে। “

Md.Sazirul Islam Lincoln.
Floating Correspondent.
Rajshahi Mohanogor.

Leave a Reply