পাবনার বেড়ায় যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে ব্যক্তিগত গোডাউনে সরকারি চাল মজুদ রাখার অভিযোগ।

0
21

পাবনাঃ- পাবনা বেড়া উপজেলার চাকলা ইউনিয়নের যুবলীগ নেতা সরকারি খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির ডিলার মাসুদ রানা লিখিত আবেদন ছাড়াই তার ব্যক্তিগত গোডাউনে অসৎ উদ্দ্যেশে সরকারি ৪৯৭ বস্তা চাল মুজুদ রাখার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

রবিবার (৮ নভেম্বর) দুপুরে এমন অভিযোগে উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভুমি) মাহবুব হাসান ও উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা শিরিন আক্তার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

সংশ্লিষ্ঠ প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার চাকলা ইউনিয়নের বাগজান গ্রামের সাবেক কাদের মেম্বর এর ছেলে আওয়ামী যুবলীগ নেতা মাসুদ রানা সরকারি খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির একজন ডিলার।

উপজেলা কর্তৃক নির্ধারিত স্থান হিসেবে সরকারি চাল রাখার কথা চাকলা ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডের কুশিয়ারা বাজারের ছোলাইমানের ঘরে।

কিন্তু নির্ধারিত স্থান পরিবর্তন করে অসৎ উদ্দ্যেশে বাগজান ৮ নং ওয়ার্ডের মোতালেব চৌকিদারের বাড়ি সংলগ্ন তাঁর ব্যক্তিগত গোডাউনে ৪৯৭ বস্তা চাল মজুদ করেন।

এ বিষয়ে লিখিত কোন আবেদন না করেই নিজের ইচ্ছেমত অন্য স্থানে চাল মুজুদ করেন মাসুদ রানা।

এমন গোপন সংবাদে উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভুমি) মাহবুব হাসান, খাদ্য কর্মকর্তা শিরীন আক্তার সরেজমিনে গিয়ে তার সত্যতা পান।

এই চাল দরিদ্র মানুষের মধ্যে ১০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করার কথা ছিল।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন এলাকাবাসী জানান, মাসুদ এলাকায় প্রভাব খাটিয়ে সুদের রমরমা ব্যাবসা করছে দীর্ঘদিন ধরে।

তার সুদের টাকা না দিতে পেরে এলাকা ছেড়েছেন অনেকেই। এমনকি যে ঘরে সরকারি চাল মুজুদ করেছিল সেই ঘর পানি উন্নয়ন বোর্ডের জায়গা দখল করে ব্যক্তিগত ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করছেন।

এমন কি নিজেকে অনেক বড় সাংবাদিক দাবি করে বিভিন্ন অপকর্ম করে বেড়ায় এই মাসুদ রানা।

অবৈধ ভাবে পানি উন্নয়ন বোর্ডের জায়গা দখলের প্রেক্ষিতে এলাকাবাসী তার অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের জন্য উপজেলা প্রশাসন ও পানি উন্নয়ন বোর্ডে বরাবর লিখিত অভিযোগও দিয়েছেন বলে জানান এলাকাবাসী।

এ ব্যাপারে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচি ডিলার মাসুদ রানা মুঠোফোনে জানান, খাদ্য অধিদপ্তর বরাবর দরখাস্ত করেছি। বিষয়টি অফিসের অবহেলায় এখনও অনুমোদন পাইনি।

ইউএনও আসিফ আনাম সিদ্দিকী বলেন, ডিলার মাসুদের ব্যাপারে অভিযোগ পাওয়ার পরেই এসিল্যান্ড সেখানে পরিদর্শন করেছেন এবং এ অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা পাওয়া গেছে।

যেখানে তার অনুমোদিত সরকারি চাল রাখার শর্তভঙ্গ করে অন্য যায়গায় চাল রাখার দায়ে খাদ্যবান্ধব কর্মসুচির নীতিমালা অনুযায়ী সে যদি শর্তভঙ্গ করে সে বিষয়ে আমরা প্রশাসনিক পদক্ষেপ গ্রহণ করব।

স্থান পরিবর্তনরে জন্য সে কোন লিখিত আবেদন করেনি বলেও তিনি জানান।

Leave a Reply